Home / বাংলা টিপস / তিন মাস পর্যন্ত মরিচ ভালো রাখার সহজ ও সঠিক উপায়!

তিন মাস পর্যন্ত মরিচ ভালো রাখার সহজ ও সঠিক উপায়!

রমজানে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বাড়তে থাকে। এর জন্য অনেকেই প্রয়োজনীয় জিনিসগুলো কিনে দীর্ঘ সময়ের জন্য সংরক্ষণ করে রাখেন।এর মধ্যে কাঁচা মরিচ অন্যতম। তবে দেখা যায় যে, সঠিক পদ্ধতিতে সংরক্ষণ না করার কারণে অনেক সময় মরিচ নষ্ট হয়ে যায়।

অন্যদিকে, মরিচ কিনে ফ্রিজে রেখে দিলে অনেকে মনে করেন মরিচ ভালো থাকবে। কিন্তু এমনটা হয় না। কয়েকদিন পরেই দেখা যায় নষ্ট হয়ে গেছে। তবে খুব সহজ পাঁচটি উপায়ে মরিচ নষ্ট হয়ে যাওয়া রোধ করা যায়। এমনকি দীর্ঘদিন সংরক্ষণও করা যায়। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক সেই পাঁচটি উপায় সম্পর্কে-

মরিচের বোটা ছাড়িয়ে নিন
মরিচের বোটা থাকলে মরিচ পচে যায় তাড়াতাড়ি। তাই অনেক দিন মরিচ সংরক্ষণ করতে চাইলে অবশ্যই মরিচের বোটা ফেলে দিতে হবে।

মরিচ ধোয়া যাবে না
ফ্রিজে রাখার জন্য মরিচগুলোকে একদম শুকনো অবস্থায় রাখতে হবে। কোনো পানি যেন না থাকে মরিচের গায়ে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। এমনকি মরিচগুলোর সঙ্গে যদি কোনো পঁচা মরিচ থেকে থাকে তাহলে সেটি সরিয়ে নিতে হবে। প্লাস্টিকের একটি বক্সে রাখতে হবে। ঢাকনার আগে একটা কাগজ বা টিস্যু পেপার রাখতে হব। এটা মরিচগুলোকে শুষ্ক রাখবে।

ঢাকনা যুক্ত বক্সে সংরক্ষণ করুন
মরিচ ফ্রিজে রাখলে মুখ খোলা এমন কোনো বক্সে কোনভাবেই রাখা যাবে না। বক্সের নিচে টিস্যু পেপার এবং বক্সে ঢাকনার নিচেও টিস্যু পেপার রাখতে হবে। এতে করে মরিচে কোনো প্রকারের পানি থেকে থাকলে টিস্যু পেপারগুলো তা শুষে নেবে। একটি বক্সে অনেক বেশি মরিচ রাখা যাবে না। টিস্যু পেপার ভেজা মনে হলে কয়েকদিন পর পর টিস্যু বদলিয়ে দিতে হবে।

সঙ্গে রসুন রাখুন
শুকনো টিস্যু পেপার বক্সের নিচে রেখে তার উপরে একটি রসুন রাখতে হবে। তারপর মরিচগুলোকে বক্সে দিতে হবে। এভাবে মরিচ তিন মাস পর্যন্ত সংরক্ষণ করা যায়।

অন্যান্য মশলা থেকে মরিচ আলাদা রাখুন
রান্নাঘরের অন্যান্য মসলার যেমন- আদা, রসুন, সবজি অথবা যেকোনো কিছুর সঙ্গে মরিচ এক জায়গায় রাখা যাবে না। মরিচ সবসময় আলাদা ভাবে সংরক্ষণ করতে হবে। কারণ অন্যান্য মশলার আর্দ্রতার সংস্পর্শে এলে মরিচ তাড়াতাড়ি নষ্ট হতে শুরু করে।

Check Also

রক্তস্বল্পতায় হতে পারে মা ও গর্ভের শিশুর মারাত্মক যেসব ক্ষতি

গর্ভবস্থায় রক্তস্বল্পতা খুবই ঝুঁকিপূর্ণ একটি অবস্থা। এক্ষেত্রে কেউ আগে থেকেই রক্তস্বল্পতায় ভুগতে পারেন, আবার কেউ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *